বন অধিদপ্তর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১০ অক্টোবর ২০১৭

আন্তর্জাতিক পুরস্কার

 

 

 

সলুউশন সার্চ পুরষ্কার ২০১৩: পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় কর্তৃক উপকূলীয় এলাকায় বাস্তবায়িত ‘কমিউনিটি বেজড এডাপটেশন টু ক্লাইমেট চেঞ্জ’ প্রকল্পটি সলুউশন সার্চ: এডাপটিং টু এ ক্লাইমেট চেঞ্জ” প্রতিযোগিতার জন্য রানার আপ” এওয়ার্ড পেয়েছে। এই উদ্ভাবনী প্রতিযোগিতায় স্থানীয় সম্প্রদায় কিভাবে তাদের পরিবর্তিত পরিবেশে অভিযোজিত হয়  তা অন্বেষণ করা হয়। প্রতিযোগিতায় সারা বিশ্বের ৩৭ টি দেশের ৮৫টিরও বেশি প্রতিযোগি অংশগ্রহণ করেছে।

 

ইকুয়েটর পুরষ্কার ২০১২: চুনতি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য সহ-ব্যবস্থাপনা কমিটি জাতিসংঘ ঘোষিত ইকুয়েটর পুরষ্কার ২০১২ অর্জন করেছে।

 

ওয়াঙ্গারী মাথাই পুরষ্কার ২০১২: কক্সবাজার জেলার টেকনাফ বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যের জীববৈচিত্র্য  সংরক্ষণ ও অবৈধ গাছ পাচার বন্ধে স্থানীয় জনগণ তথা মহিলাদের উদ্বুদ্ধকরণ বিষয়ে বিশেষ অবদানের জন্য টেকনাফ উপজেলার কেরানতলী গ্রামের বিধবা নারী খুরশিদা বেগম আন্তর্জাতিক এ পুরষ্কার অর্জন করেছেন।

 

আর্থ কেয়ার পুরষ্কার ২০১২: পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় কর্তৃক উপকূলীয় এলাকায় বাস্তবায়িত ‘কমিউনিটি বেজড এডাপটেশন টু ক্লাইমেট চেঞ্জ’ প্রকল্পের অধীনে বনায়নের সাথে যৌথভাবে মৎস্য ও ফল চাষ পদ্ধতি আন্তর্জাতিক ‘আর্থ কেয়ার’ পুরষ্কার অর্জন করেছে।

 

ক্লাইমেট পুরস্কার ২০১২: টাঙ্গাইল বন বিভাগ  মধুপুর বনে প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে ৭০০ পরিবারকে পুনর্বাসন করে বন রক্ষ্যার জন্য পুরস্কারটি গ্রহণ করে।

 

জাতিসংঘের শ্রেষ্ঠ প্রকল্প ২০১২: উপকূলীয় এলাকায় বাস্তবায়িত ‘কমিউনিটি বেজড এডাপটেশন টু ক্লাইমেট চেঞ্জ’ প্রকল্পের আওতায় ভোলা জেলার চর কুকরী-মুকরীতে ডাইক পদ্ধতির বনায়নের মাধ্যমে স্থানীয় জনগণের অংশগ্রহণ ও জীবিকা নির্বাহের সুযোগ সৃষ্টি প্রক্রিয়া জাতিসংঘের শ্রেষ্ঠ প্রকল্পের স্বীকৃতি অর্জন করেছে। 

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

Share with :